তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়

তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায় – বিভিন্ন ধরণের ত্বকের সমস্যার একটি হ’ল তৈলাক্ত ত্বক।এই ধরনের ত্বকযুক্ত মহিলারা গ্রীষ্ম এবং আর্দ্রতার সময় অনেক সমস্যায় পড়ে।তৈলাক্ত ত্বকে ধুলা এবং সূর্যের আলো খারাপ প্রভাব ফেলে।এ জাতীয় ত্বকযুক্ত মহিলাদের মেকআপও সঠিকভাবে হয় না।এই কারণে তৈলাক্ত ত্বকের মহিলাদের মেকআপ প্রয়োগ করার সময় কিছুটা সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত।

তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পেতে বাড়িতে উপলভ্য উপাদানের সাহায্যে আপনি এই সমস্যাটি এড়াতে পারেন।এই জাতীয় ত্বকের সমস্যার জন্য আয়ুর্বেদে অনেকগুলি প্রতিকারের উল্লেখ রয়েছে। আয়ুর্বেদিক প্রতিকার অবলম্বন করে আপনি যে কোনও ক্রিম বা জেলগুলির অপ্রয়োজনীয় ক্রয় এড়াতে পারবেন।আসুন জেনে নিই আয়ুর্বেদে উল্লিখিত সেই ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে যা আপনি তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পেতে পারেন।

তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পাওয়ার সহজ উপায়

তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তির উপায়

১. হলুদ ও দইয়ের মাস্ক (Turmeric & Yogurt Face Mask) –

দই ব্লিচিং এবং ত্বক পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে কাজ করে। হলুদে অ্যান্টি-বায়োটিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে যা ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর করে। দই ও হলুদ দিয়ে তৈরি ফেস মাস্ক লাগালে মুখের ত্বক গভীরভাবে পরিষ্কার করে।ফেসিয়াল অয়েল চলে যায় এবং তৈলাক্ত ত্বক প্রাকৃতিকভাবে মিহি করে তোলে।

প্রতিদিন এই ধরণের টিপস এর আর্টিকেল এবং ভিডিও পেতে ভিজিট করুনঃ বিউটি টিপস

এই ফেস মাস্কটি তৈরি করতে আধা কাপ দইয়ের সাথে ১ চা চামচ হলুদ,১ চা চামচ মধু এবং ১ চা চামচ লেবুর মিশ্রণ করুন।এরপর সব উপকরন ভালভাবে মিশিয়ে নিন এবং এই মিশ্রণটি আপনার মুখে লাগান।মিশ্রনটি মুখে লাগানোর পর শুকিয়ে যাওয়ার জন্য ১৫-২০ মিনিট অপেক্ষা করুন।শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।আশাকরি এই ফেস মাস্কটি ব্যবহারের ফলে আপনি তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পাবেন।

২. পেঁপের রস (Papaya Juice) –

তৈলাক্ত ত্বক থেকে মুক্তি পেতে আপনার মুখে পেঁপের রস লাগান।পেঁপের রস মুখ পরিষ্কার করে এবং ময়শ্চারাইজ করে।পেঁপে ত্বক এবং স্বাস্থ্য উভয়ের জন্যই উপকারী।প্রথমে পেঁপে থেকে রস বের করে নিন এরপর আস্তে আস্তে পেঁপের রস আপনার মুখে ম্যাসাজ করুন।ম্যাসাজ করা শেষে শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করুন শুকিয়ে গেলে ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখে ধুয়ে ফেলুন।

আরো পড়ুনঃ গর্ভবতী মহিলাদের যত্ন – গর্ভবতী মহিলাদের সমস্ত প্রশ্নের উত্তর

৩. তুলসীর মাস্ক (Tulsi Face Mask) –

তুলসীতে এন্টি ব্যাকটেরিয়া এবং প্রদাহজনক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি তৈলাক্ত ত্বকের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়।তুলসী মুখের ব্রণের সমস্যা নিরাময় করে।এক মুঠো তুলসী পাতা ধুয়ে পেস্ট তৈরি করুন।তুলসী পাতার পেস্টে ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো এবং ১ চা চামচ লেবুর রস দিন।সবগুলো উপকরণ ভালভাবে মিশিয়ে মিশ্রণটি আপনার মুখে ভালো করে লাগিয়ে নিন।কিছুক্ষণ মুখে রেখে দিন এবং তারপরে পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।

৪. নিমের মাস্ক (Neem Face Mask) –

তুলসীর মতো নিমেরও বৈশিষ্ট্য রয়েছে। এটি ব্যবহার ফলে ত্বক দীর্ঘদিন স্বাস্থ্যকর এবং তরুণ দেখায়।কিছু তাজা নিম পাতা ধুয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন।তারপরে ১ চা চামচ হলুদ গুঁড়ো এবং লেবুর রস দিন এবং ভালো করে মিশিয়ে নিন।এবার এটি আপনার মুখে লাগিয়ে ৩০ মিনিটের জন্য রেখে দিন তারপর এটি জল দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৫. মুলতানি মাটির মাস্ক (Multani Mitti Face Mask) –

মুলতানি মাটির মাস্ক

ত্বকের যত্নে মুলতানি মাটির ব্যবহার তৈলাক্ত ত্বক উজ্জ্বল করার উপায় হিসাবে বর্ণনা করা হয়। মুলতানি মাটি আপনার তৈলাক্ত ত্বকের জন্য খুবি উপকারী।এটি ত্বককে দীর্ঘ সময়ের জন্য হাইড্রেটেড রাখে।মুলতানি মাটির গুঁড়োর সাথে ২ চা চামচ লেবুর রস যোগ করুন এবং ঘন পেস্ট তৈরি করুন।মিশ্রনটি তৈরি হয়ে গেলে মিশ্রণটি আপনার মুখে লাগান এবং শুকিয়ে যাওয়ার জন্য ২০ মিনিট অপেক্ষা করুন।শুকিয়ে গেলে এটি ঠান্ডা জল দিয়ে সমস্ত মুখমণ্ডল ধুয়ে ফেলুন।

৬. কমলার রস (Orange Juice) –

কমলা ভিটামিন সি এবং বিভিন্ন খনিজ সমৃদ্ধ।মুখের তৈলাক্ত ত্বকে কমলার রস ব্যবহার করলে ত্বকের তৈলাক্তভাব দূর হয়ে যায়।অর্ধেক কমলা নিয়ে খোসা ছাড়িয়ে নিন এবং একটি পরিষ্কার বাটিতে রস বের নিন।রস বের করা হয়ে গেলে আপনার মুখে ম্যাসাজ করুন। কিছুক্ষণ পর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

৭. চন্দন পাউডার ফেস মাস্ক (Sandalwood Powder Face Mask)-

চন্দন কাঠের গুঁড়া সবসময় সৌন্দর্য বাড়ানোর জন্য ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এগুলি বাজারে পাওয়া অন্যান্য সৌন্দর্যের পণ্যের চেয়ে বেশি উপকারী।একটি বাটিতে ২ চা চামচ চন্দন গুঁড়ো নিন।এরপর পরিমান মতো ঠান্ডা দুধ যুক্ত করে ঘন পেস্ট তৈরি করুন।পেস্ট তৈরি শেষে আপনার সমস্ত মুখে লাগিয়ে নিন।লাগানো শেষে শুকানোর জন্য ২০-৩০ মিনিট অপেক্ষা করুন।শুকিয়ে গেলে পানি দিয়ে আপনার মুখ পরিষ্কার করুন।

৮. কাঁচা দুধ (Raw Milk)-

দুধ স্বাস্থ্য এবং সৌন্দর্য উভয়ের জন্যই উপকারী। তৈলাক্ত ত্বক দূর করার উপায় এর পাশাপাশি ত্বককে হাইড্রেটেড এবং ময়শ্চারাইজড রাখে।এটি ত্বকের রঙও উন্নত করে।

একটি বাটিতে সামান্য কাঁচা দুধ নিন এবং সুতির কাপড়ের সাহায্যে সমস্ত মুখে লাগিয়ে নিন।লাগানো শেষে ১৫-২০ মিনিটের জন্য প্রাকৃতিকভাবে শুকাতে দিন এবং তারপরে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

তৈলাক্ত ত্বক দূর করার উপায় রাসায়নিকযুক্ত বাজারজাত পণ্যগুলির চেয়ে বেশি কার্যকর।তৈলাক্ত ত্বক উজ্জ্বল করার উপায় গুলোতে কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই।তৈলাক্ত ত্বক দূর করার উপায় গুলো ব্যবহার করে বাজারের কিনতে পাওয়া পণ্যের চেয়ে ভাল ফলাফল পাবেন।

Duromine 15 mg provides a real opportunity for obese adolescents and adults to safely get rid of excess weight, which will seriously improve their well-being and quality of life. vgrmalaysia.net Although Duromine 15 mg is the lowest dose of the weight loss drug, it is very effective and helps the majority patients, who are tired of constant struggle against excess weight.