Home / চিকিৎসা / শিশুর কৃমি হলে করনীয় ও চিকিৎসা

শিশুর কৃমি হলে করনীয় ও চিকিৎসা

শিশুর কৃমি হলে করনীয় : সারা পৃথিবীতেই শিশুদের বিভিন্ন ধরনের কৃমি এর প্রাদুর্ভাব লক্ষ করা যায়। বাংলাদেশেও অধিকাংশ শিশু-কিশোর ও প্রাপ্তবয়স্কদের মধ্যে কৃমির প্রাদুর্ভাব লক্ষ করা যায়। বিভিন্ন প্রকার কৃমির মধ্যে কেঁচো বা লম্বাকৃতি (এসকারিস লুমব্রিকয়েডস), বক্রকৃমি বা হুক ওয়ার্ম, সুতাকৃমি, ট্রাইচুরিস ট্রাইচুরা (টিটি), স্ট্রংগিলয়েড স্টারকোরালিস ও ডিম কোনোভাবে পেটে ঢুকলে তা থেকে পেটের মধ্যে কৃমি সৃষ্টি হয়।

বক্রকৃমি বা হুক ওয়ার্মের লার্ভা (ডিম থেকে বৃদ্ধি পাওয়া শিশু কৃমি) পায়ের চামড়া ভেদ করে শরীরে প্রবেশ করে এবং ক্ষুদ্রান্ত্রে গিয়ে তার হুক আঁকশি দিয়ে রক্ত চোষে। এতে কিছুকাল পর রোগীর রক্তশূন্যতা দেখা দেয়। সুতাকৃমি পায়খানার রাস্তায় এসে কিলবিল করে এবং ডিম ছাড়ে। চুলকানোর সময় এসব ডিম হাতের আঙুল ও নখে লেগে থাকে। এটি খাবার ও পানির সঙ্গে পেটে ঢুকে কৃমিতে রূপান্তরিত হয়। ফিতাকৃমি অল্প সেদ্ধ বা অর্ধসেদ্ধ গরুর মাংস বা শূকরের মাংস খেলে হতে পারে। এগুলোর দৈর্ঘ্য ৫ থেকে ২০ মিটার পর্যন্ত হতে পারে। এ জাতীয় কৃমি গরু, শূকর ইত্যাদি পশুর মাংসে বাসা বাঁধে।

আরো পড়ুনঃ শিশুর প্রথম দাঁত উঠতে যে বিষয় গুলো লক্ষ রাখবেন

ওপরে বর্ণিত কৃমিগুলোর মধ্যে লম্বাকৃতি বা এসকারির লুমব্রিকয়েডসের প্রাদুর্ভাব আমাদের দেশে বেশি। বাংলাদেশে একটি সমীক্ষায় গ্রামাঞ্চল ও শহরের শিশুদের মধ্যে যথাক্রমে ৯২ ভাগ ও ২৮ ভাগ ক্ষেত্রে এই কৃমি দেখা গেছে। পেটে কৃমি থাকলে :

  • রোগীর পেটব্যথা হয়
  • ক্ষুধামান্দ্য দেখা দেয়
  • পেট ফাঁপা থাকে
  • শরীর অজীর্ণ হয়
  • বমি হতে পারে
  • এমনকি কৃমি ক্ষুদ্রান্ত্রকে বন্ধ করে দিয়ে প্রচণ্ড পেটব্যথার সৃষ্টি করতে পারে
  • এ ছাড়া অন্ত্রনালিকে ছিদ্র করে দিতে পারে
  • কৃমি পিত্তনালিতে ঢুকে পিত্তনালির পথ বন্ধ করে দিয়ে জন্ডিসের সৃষ্টি করার মতো মারাত্মক অবস্থার সৃষ্টি করতে পারে।

শিশুর কৃমি হলে করনীয় ও চিকিৎসা

  • কৃমির চিকিৎসা দেওয়ার আগে কৃমি হয়েছে কি না, সেই বিষয়ে নিশ্চিত হতে হবে। এ জন্য পায়খানা পরীক্ষা করার দরকার রয়েছে। পায়খানা বা স্টুলের রুটিন পরীক্ষায় এটি ধরা পড়ে।
  • যেকোনো কৃমির ক্ষেত্রে যে ওষুধ সাধারণভাবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে, সেটি হচ্ছে মেবেনডাজল। এ ওষুধের উল্লেখযোগ্য বাজারজাত নাম হচ্ছে আরমক্স/মেবেন। বয়স্কদের বেলায় মেবেন/আরমক্স ট্যাবলেট ১০০ মিলিগ্রাম একটা করে দিনে দুবার মোট তিন দিন খেতে হবে। শিশুদের বেলায় আরমক্স/মেবেন সিরাপ চা চামচের এক চামচ করে দিনে দুবার মোট তিন দিন খেতে দেওয়া যেতে পারে।
  • এ ছাড়া কৃমির জন্য অন্য একটি ওষুধ এলবেনডাজল। বাজারে এটি আলবেনসহ অনেক নামে পাওয়া যায়। বয়স্ক ও শিশু উভয়ের বেলায় দুটি আলবেন রাতে শোয়ার সময় খাইয়ে দেওয়া যেতে পারে। দুই বছরের কম বয়সী শিশুদের বেলায় ২০০ মিলিগ্রামের একটি আলবেন ট্যাবলেট খাওয়ালেই চলবে। তবে যেকোনো ওষুধ সেবনের আগে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে নিন।

আরো পড়ুনঃ হলুদ দুধ’ দূর করবে শিশুর ঠাণ্ডা সমস্যা

Check Also

জেনে রাখুন পরিচিত স্বাস্থ্য সমস্যা অ্যালার্জি সম্পর্কে

জেনে রাখুন পরিচিত স্বাস্থ্য সমস্যা অ্যালার্জি সম্পর্কে

আপনার কি একসঙ্গে অনেকগুলো হাঁচি হয়? অথচ কিছুক্ষণ পরে আবার সেরে যায়? মাঝেমধ্যেই গায়ে র‍্যাশ …